মাঙ্কিপক্স (ছবি: সংগৃহীত)
মতামত

আতঙ্কের আরেক নাম মাঙ্কিপক্স

ডা. এম সেলিম উজ্জামান: গোটা বিশ্বে নতুন করে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে মাঙ্কিপক্স ভাইরাস (Monkeypox)। মাঙ্কিপক্স ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট রোগের নাম ‘মাঙ্কিপক্স’। ১৯৮০ সালে বিশ্বব্যাপী নির্মূল হওয়া গুটিবসন্ত এই বংশের অন্য ভাইরাস। এখন পর্যন্ত ১১টির বেশি দেশে রিপোর্ট করা সাম্প্রতিক প্রাদুর্ভাবগুলো সে দেশগুলোতে সাধারণভাবে অস্বাভাবিক।

মাঙ্কিপক্স একটি ভাইরাল জুনোটিক রোগ যা প্রাথমিকভাবে মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার গ্রীষ্মমণ্ডলীয় রেইনফরেস্ট (বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন) এলাকায় দেখা যায় এবং মাঝে মাঝে অন্যান্য অঞ্চলে পাওয়া যায়। বর্তমানে ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়াসহ অনেক দেশই এ রোগের বিস্তার নিয়ে চিন্তিত। ইতোমধ্যেই ইউরোপের বেলজিয়াম, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, সুইডেন, স্পেন, পর্তুগাল এবং যুক্তরাজ্যে নিশ্চিত হওয়া সংক্রমণের কেস রিপোর্ট করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ৮০টি নিশ্চিত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। নজরদারি প্রসারিত হওয়ায় আরও রোগীর শনাক্ত রিপোর্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মাঙ্কিপক্স কী?

মাঙ্কিপক্স বিশ্বব্যাপী জনস্বাস্থ্য হুমকির একটি গুরুতর রোগ। মাঙ্কিপক্স হলো একটি বিরল ভাইরাল সংক্রমণ যা সাধারণত হালকা হয় এবং যেখান থেকে বেশিরভাগ মানুষ কয়েক সপ্তাহের মধ্যে সুস্থতা লাভ করে। মাঙ্কিপক্স সাধারণত একটি স্ব-সীমিত রোগ যার লক্ষণগুলো ২-৪ সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হয়। ১৯৭০ সালে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গোর একটি অঞ্চলের ৯ বছর বয়সি এক ছেলের মধ্যে মানব মাঙ্কিপক্স প্রথম শনাক্ত করা হয়েছিল। কঙ্গোতে ১৯৬৮ সালে গুটিবসন্ত নির্মূল করা হয়। নাইজেরিয়া একটি বৃহৎ প্রাদুর্ভাবের সম্মুখীন হয়েছিল, নিশ্চিত হওয়া কেস-এর প্রায় ৩ শতাংশ মৃত্যুবরণ করে। আজও কেস রিপোর্ট প্রাদুর্ভাব অব্যাহত আছে। কিন্তু সাধারণত মাঙ্কিপক্সের ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার সাধারণ জনসংখ্যার মধ্যে ০ থেকে ১১ শতাংশ পর্যন্ত যা ছোট বাচ্চাদের মধ্যে বেশি (বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা)।

মাঙ্কিপক্স-এর রোগজীবাণু কী?

মাঙ্কিপক্স ভাইরাস হলো একটি এনভেলপড ডিএনএ ভাইরাস যা পক্সভিরিডে পরিবারের অর্থোপক্সভাইরাস জেনাস অন্তর্গত। মাঙ্কিপক্স ভাইরাসের দুটি স্বতন্ত্র জেনেটিক ক্লেড রয়েছে-মধ্য আফ্রিকান (কঙ্গো বেসিন) ক্লেড এবং পশ্চিম আফ্রিকান ক্লেড। কঙ্গো বেসিন ক্লেড গুরুতর রোগ সৃষ্টি করে।

মাঙ্কিপক্সের লক্ষণগুলো কী?

মাঙ্কিপক্সের ইনকিউবেশন পিরিয়ড (সংক্রমণ থেকে উপসর্গের সূত্রপাত পর্যন্ত ব্যবধান) সাধারণত ৬-১৩ দিন হয়, তবে ৫ থেকে ২১ দিন পর্যন্ত হতে পারে। জ্বর, তীব্র মাথাব্যথা, লিম্ফডেনোপ্যাথি (লিম্ফনোড ফুলে যাওয়া), পিঠে ব্যথা, পেশিতে ব্যথা এবং তীব্র অ্যাথেনিয়া (শক্তির অভাব)। লিম্ফনোড ফুলে যাওয়া, অন্যান্য রোগের তুলনায় মাঙ্কিপক্সের একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য যা প্রাথমিকভাবে একই রকম দেখা যেতে পারে (যেমন, অন্যান্য রোগ চিকেনপক্স, হাম, গুটিবসন্ত)। মাঙ্কিপক্সের লক্ষণগুলোর মধ্যে আরও রয়েছে ত্বকের ফুসকুড়ি, বমি বমি ভাব, ঠান্ডা লাগা এবং ক্লান্তি। রোগটি গুরুতর জটিলতার দিকে যেতে পারে। মাঙ্কিপক্সে মৃত্যুর হার প্রায় ৩-৬ শতাংশ। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ত্বকের ফুসকুড়ি সাধারণত জ্বর হওয়ার ১-৩ দিনের মধ্যে শুরু হয়। ফুসকুড়ি দেহের পরিবর্তে মুখ এবং হাতের দিকে বেশি ঘনীভূত হতে থাকে। এটি মুখকে প্রভাবিত করে (৯৫ শতাংশ ক্ষেত্রে) এবং হাতের তালু এবং পায়ের তলায় (৭৫ শতাংশ ক্ষেত্রে)। এ ছাড়াও মুখের শ্লেষ্মা ঝিল্লি (৭০ শতাংশ ক্ষেত্রে), যৌনাঙ্গ (৩০ শতাংশ) এবং কনজাংটিভা (২০ শতাংশ) এবং কর্নিয়াও প্রভাবিত হয়। ফুসকুড়ি ক্রমাগতভাবে ম্যাকুলস (একটি সমতল ভিত্তিসহ ক্ষত) থেকে প্যাপিউলস (সামান্য উত্থিত শক্ত ক্ষত), ভেসিকল (স্বচ্ছ তরলে ভরা ক্ষত), পুস্টুলস (হলুদ তরলে ভরা ক্ষত) এবং ক্রাস্ট যা শুকিয়ে যায় এবং পড়ে যায়। ক্ষতের (দৃঢ, ভালোভাবে সীমাবদ্ধ, গভীর এবং নাভিরমতো ক্ষত) সংখ্যা কয়েক থেকে কয়েক হাজার পর্যন্ত পরিবর্তিত হয়। গুরুতর ক্ষেত্রে, ক্ষতগুলো একত্রিত হয়ে বড় আকার ধারণ করে। মাঙ্কিপক্সের জটিলতার মধ্যে অধিকতর অন্য ইনফেকশন, ব্রঙ্কোপনিউমোনিয়া, সেপসিস, এনসেফালাইটিস এবং কর্নিয়ার সংক্রমণ এবং পরবর্তী দৃষ্টিশক্তির ক্ষতি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

মাঙ্কিপক্সের ব্যক্তিদের মধ্যে ফুসকুড়ি দেখা দেয় যারা...

১) সম্প্রতি মাঙ্কিপক্সের নিশ্চিত রোগী আছে এমন দেশগুলোতে ভ্রমণ করেছেন। ২) এমন কোনো ব্যক্তি বা লোকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন যাদের একই রকম ফুসকুড়ি দেখা গেছে বা নিশ্চিত বা সন্দেহজনক রোগ নির্ণয় পেয়েছে সড়হশবুঢ়ড়ী, বা ৩) এমন একজন ব্যক্তি যিনি নিয়মিতভাবে অন্যান্য সন্দেহভাজন সংক্রমিত পুরুষদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বা অন্তরঙ্গ যোগাযোগ করেন।

কিভাবে মাঙ্কিপক্স সংক্রমণ ছড়ায়?

মাঙ্কিপক্স ভাইরাস সংক্রামিত ব্যক্তি বা প্রাণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের মাধ্যমে শরীরের ক্ষত, শরীরের তরল নিঃসরণ, শ্বাসকষ্টের নিঃসরণ এবং শরীরের নিঃসৃত তরল পদার্থের দ্বারা দূষিত বিছানাপত্রের মাধ্যমে বা ভাইরাস দ্বারা দূষিত উপাদানের মাধ্যমে একজন থেকে অন্য মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হয়। শ্বাসযন্ত্রের কণার মাধ্যমে সংক্রমণের জন্য সাধারণত দীর্ঘক্ষণ মুখোমুখি যোগাযোগের প্রয়োজন হয়, যা স্বাস্থ্যকর্মী, পরিবারের সদস্য এবং সক্রিয় ক্ষেত্রে অন্যান্য ঘনিষ্ঠ পরিচিতদের আরও বেশি ঝুঁকিতে রাখে। প্ল্যাসেন্টার মাধ্যমে মা থেকে ভ্রূণে (যা জন্মগত মাঙ্কিপক্স হতে পারে) বা জন্মের সময় এবং পরে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের সময়ও সংক্রমণ ঘটতে পারে। যৌন সংক্রমণ মাধ্যমে মাঙ্কিপক্স সন্দেহজনক সংক্রমণ রিপোর্ট করা হয়েছে। ক্ষতগুলো শুধু যৌনাঙ্গে বা পেরিয়ানাল এলাকায় ছড়িয়ে বা অবস্থিত হতে পারে। একজন ব্যক্তি উপসর্গের সূত্রপাত থেকে সংক্রামক হিসাবে বিবেচিত হয় এবং ক্ষতগুলো ক্রাস্ট না হওয়া পর্যন্ত, সেই ক্রাস্টগুলো আলাদা না হওয়া পর্যন্ত এবং নিচে সুস্থ ত্বকের একটি তাজা স্তর তৈরি না হওয়া পর্যন্ত তাকে সংক্রামক বলে মনে করা হয়। পশু থেকে মানুষ (জুনোটিক) সংক্রামিত প্রাণীর রক্ত, শারীরিক তরল বা সংক্রামিত প্রাণীর ত্বকের বা মিউকোসাল ক্ষতগুলোর সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ থেকে ঘটতে পারে। অন্যান্য সম্ভাব্য সংক্রমণ ঝুঁকির কারণ, অপর্যাপ্তভাবে রান্না করা মাংস এবং সংক্রামিত প্রাণীর প্রাণীজ অংশ খাওয়া।

মাঙ্কিপক্স থেকে নিরাপদ থাকতে কী করবেন?

যেহেতু মাঙ্কিপক্স সংক্রামিত/ আক্রান্ত ব্যক্তিদের (অথবা পশু) ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়ায়, সেহেতু তাদের সংক্রামিত/ আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরের ক্ষত, শরীরের তরল নিঃসরণ, শ্বাসপ্রশ্বাস নিঃসরণ (Respiratory droplets) এবং শরীরের নিঃসৃত তরল পদার্থের দ্বারা দূষিত বিছানাপত্র থেকে দূরে এবং নিরাপদ থাকা উচিত। যারা সংক্রামক ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যোগাযোগ করে তাদের সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর্মী, পরিবারের সদস্য এবং যৌন অংশীদাররা। সংক্রামিত প্রাণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের মাধ্যমে মাঙ্কিপক্স মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হতে পারে। প্রকৃতিতে মাঙ্কিপক্স ভাইরাসের বাহক প্রাণী হলো দড়ি কাঠবিড়ালি, গাছ কাঠবিড়ালি, গাম্বিয়ান পাউচড ইঁদুর, ডর্মিস, অ-মানব প্রাইমেট এবং অন্যান্য প্রজাতি, পোষা কুকুরও সংক্রমিত হতে পারে।

মাঙ্কিপক্স রোগ নির্ণয়?

চিকেনপক্স, হাম, ব্যাকটেরিয়াজনিত ত্বকের সংক্রমণ, স্ক্যাবিস, সিফিলিস এবং ওষুধ-সম্পর্কিত অ্যালার্জি। তবে, অসুস্থতার প্রাথমিক শুরুর সময়/পর্যায়ে ‘লিম্ফনোড ফুলে যাওয়া (লিম্ফ্যাডেনোপ্যাথি)’ চিকেনপক্স বা গুটিবসন্ত থেকে মাঙ্কিপক্সকে আলাদা করার জন্য একটি ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্য। যদি মাঙ্কিপক্স সন্দেহ হয়, উপযুক্ত নমুনাগুলো ত্বকের ক্ষতস্থান থেকে ভেসিকেল এবং পুস্টুলস উপরিভাগের তরল এবং শুকনো ক্রাস্ট থেকে তরল নমুনা সংগ্রহ করে উপযুক্ত ব্যবস্থার মাধ্যমে পরীক্ষাগারে নিরাপদে ‘পিসিআর’ পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করা উচিত। সেরোলজিক্যালভাবে ক্রস-রিঅ্যাকটিভ, অ্যান্টিজেন এবং অ্যান্টিবডি শনাক্তকরণ পদ্ধতিগুলো মাঙ্কিপক্স নির্দিষ্ট নিশ্চিতকরণ প্রদান করে না।

মাঙ্কিপক্স-এর চিকিৎসা?

মাঙ্কিপক্স ভাইরাস সংক্রমণের জন্য কোনো নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। তবে, Tecovirimat monohydrate মাঙ্কিপক্সের চিকিৎসার ওষুধ কার্যকরী (যা গুটিবসন্ত চিকিৎসার জন্য উদ্ভাবিত হয়)। মাঙ্কিপক্সের লক্ষণগুলো, জটিলতা প্রতিরোধ এবং দীর্ঘমেয়াদি সমস্যাগুলো উপশম করতে ক্লিনিকাল কেয়ার সঠিকভাবে পরিচালনা করতে হবে। সেকেন্ডারি ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য নির্দেশিত চিকিৎসা করা উচিত; পাশাপাশি পর্যাপ্ত পুষ্টির অবস্থা বজায় রাখার জন্য রোগীদের তরল খাবার দেওয়া উচিত।

মাঙ্কিপক্স প্রতিরোধ করণীয়?

মাঙ্কিপক্স ঝুঁকির ও কারণ সম্পর্কে সর্বসাধারণের সচেতনতা বৃদ্ধি করা। প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণের জন্য জোরদার নজরদারি এবং নতুন সংক্রমণের দ্রুত শনাক্তকরণ গুরুত্বপূর্ণ। সংক্রামিত দেশ থেকে আগত লোকজনের আগমন-নজরদারি বাড়ানো। মাঙ্কিপক্স নির্ণয়ের জন্য সরকারি পরীক্ষাগারের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। মাঙ্কিপক্সে সংক্রামিত রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীদের প্রশিক্ষণ। সন্দেহজনক মাঙ্কিপক্স সংক্রামিত রোগীকে অবিলম্বে পরামর্শের জন্য ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। বন্য প্রাণীদের সঙ্গে অরক্ষিত যোগাযোগ, বিশেষ করে যারা অসুস্থ বা মৃত, তাদের মাংস, রক্ত এবং অন্যান্য অংশগুলো এড়িয়ে চলতে হবে।

আরও পড়ুন: এডিস মশা নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতিগত ত্রুটি সারাতে হবে আগে

যদি চিকিৎসকরা মাঙ্কিপক্সের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ফুসকুড়িযুক্ত রোগীদের শনাক্ত করেন, বিশেষ করে যাদের সাম্প্রতিক ভ্রমণের ইতিহাস এমন একটি দেশে যেখানে মাঙ্কিপক্স রিপোর্ট করা হয়েছে, তাহলে মাঙ্কিপক্সকে সম্ভাব্য রোগ নির্ণয় হিসাবে বিবেচনা করা উচিত।

ডা. এম সেলিম উজ্জামান : চিকিৎসক বিজ্ঞানী (সংক্রামক রোগ এবং ওয়ান হেল্থ)

সাননিউজ/এমএসএ

Copyright © Sunnews24x7
সবচেয়ে
পঠিত
সাম্প্রতিক

বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান

সান নিউজ ডেস্ক: বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে দেশবাসীর প্রতি...

বিশ্ব এখন ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে

সান নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা মহামা...

চাপের মুখে বরিস জনসন

সান নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্য সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দুই মন্ত্রী...

উলিপুরে অবৈধ করাত কলের বিকট শব্দে অতিষ্ট এলাকাবাসী

কামরুজ্জামান স্বাধীন, উলিপুর (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের উলিপুর...

রংপুরে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫

সান নিউজ ডেস্ক : রংপুর নগরীর মাহি...

অবশেষে টুইটার-ভারত দ্বন্দ্ব আদালতে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মাইক্রো-ব্লগি...

উইম্বলডনে সুবিধা বন্ধ হয়নি!

স্পোর্টস ডেস্ক : অস্ট্রেলিয়ান ওপে...

ফাঁসির আসামি ফয়সাল বেঙ্গালুরুতে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের বেঙ্গা...

ক্লাসবন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের দিয়ে মানববন্ধন

নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালীর সু...

সড়ক দূর্ঘটনায় রাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ...

লাইফস্টাইল
বিনোদন
sunnews24x7 advertisement
খেলা